ঢাকা ১২:৩৫ পূর্বাহ্ন, শনিবার, ১৩ এপ্রিল ২০২৪, ২৯ চৈত্র ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
যুক্তরা‌জ্যের ব্রাড‌ফো‌র্ডে সন্তা‌নের সাম‌নে মাকে খুন, মাসুম নামে এক বাংলা‌দেশি গ্রেপ্তার সমাপ্ত হলো মাহি উদ্দিন আহমদ সেলিমের মাসব্যাপী গণ ইফতার রাজধানীতে পার্বত্য চট্টগ্রামের পাহাড়ি প্রাণের উৎসব বৈসাবি পালিত পঞ্চগড়ে ঈদের দিন গৃহবধুকে জবাই করে হত্যার অভিযোগ সিলেট নগরীতে ঈদের জামাত কখন কোথায় প্রয়াত যুবদল নেতা জিলুর পরিবারকে ফ্রান্সে বসবাসরত গোলাপগঞ্জ বিএনপির ঈদ উপহার আশুলিয়ায় বাড়তি ভাড়া চাওয়ার জেরে চালক ও সুপারভাইজারকে পিটিয়ে হত্যা পুনাক, সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের দুস্থ ও অসহায়দের মাঝে ঈদ সামগ্রী বিতরণ ঠাকুরগাঁওয়ে পুলিশ হেফাজতে যুবদল নেতা আকরাম হোসেনের মৃত্যু ! আজ চাঁদ দেখা যায়নি, আগামী বুধবার সৌদি সহ বিশ্বের বেশ ক’টি দেশে ঈদুল ফিতর

সিলেটের লালাবাজারে নদীর উপর পায়ে চলার সেতু ভেঙে ফেলায় হাইকোর্টের রুল জারি

মোহাম্মদ শাহজাহান আহমদ
  • আপডেট সময় : ১২:১৭:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০৩ বার পড়া হয়েছে
Spread the love

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার লালাবাজারে বাসিয়া নদীর উপর নির্মিত ঐতিহ্যবাহী পায়ে চলার পুরনো সেতুটি ভেঙে ফেলার ঘটনায় এলজিডি সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি লালাবাজারের ৪১ জন ব্যবসায়ীর পক্ষে টিলাবাড়ি গ্রামের আজাম আলীর ছেলে আব্দুল করিমের দায়ের করা রিটের (নং ১১৪১/২৪) প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের বিচারপতি নাজমা হায়দার ও কাজী জিন্নাত হক এ রুল জারি করেন।

রুলে লালাবাজারের পশ্চিম বাজারে বাসিয়া নদীর উপর নতুন সেতু নির্মাণের জন্য পুরাতন সেতুটি ভাঙার কারণ জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে নতুন সেতু নির্মাণের জন্য বিগত ২০২৩ সালের ২৬ নভেম্বরের  ( স্মারক নং৪৬০২৯১০০.০০০.১৪.৪৮৮.২৩-৪১০১) ওয়ার্ক অর্ডারটি কেন বাতিল হবে না-এ মর্মে আগামী ৫ মার্চের মধ্যে এলজিডিকে কারণ দর্শাতে বলেছে হাইকোর্ট।

রিটকারী আব্দুল করিম বলেন, আমরা ৬৫ জন ব্যবসায়ীর স্বাক্ষর নিয়ে হাইকোর্টে রিট করেছি। আমাদের দাবি, পুরনো ব্রীজ জায়গায় রেখে দক্ষিণ দিকে নতুন ব্রীজ করা হোক।

লালাবাজারের ব্যবসায়ী ধন মিয়া বলেন, আমাদের পায়ে চলার ব্রীজটি অনেক পুরনো। পুরনো ব্রীজটি না ভেঙে দক্ষিণ দিকে নতুন ব্রীজ করার দাবি জানিয়ে আসছি আমরা। এতে ঐতিহ্যবাহী সেতু রক্ষা পাবে। পাশাপাশি নতুন ব্রীজের সড়কের কারণে শত বছরের পুরনো বাজারটি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। কিন্তু এলজিডির প্রকৌশলীরা আমাদের দাবি না মেনে ঐতিহ্যবাহী ব্রীজটি ভেঙে ফেলেছেন। তাই আমরা ব্যবসায়ীরা হাইকোর্টে রিট করেছি।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালা বাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোয়াজিদুল হক তুহিন বলেন, মূল পুরনো ফুট ব্রীজ জায়গায় রেখে দক্ষিণ দিকে নতুন ব্রীজ করার দাবি জানিয়ে আসছেন ব্যবসায়ীরা। এতে ফুট ব্রীজটি রক্ষা পেতো, আবার নতুন ব্রীজ নির্মাণ হতো। এপ্রোচ সড়কের কারণে শত বছরের পুরনো লালা বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হতো না।

সিলেট এলজিডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফারুক হোসেন বলেন, লালাবাজারে একটি নতুন সেতু নির্মাণের জন্য আমরা পুরনো ব্রীজটি ভেঙে ফেলেছি। এ বিষয়ে হাইকোর্টের রিট বা রুলের কাগজপত্র আমরা এখনো পাইনি। নথি পাওয়ার পর আমাদের আইন শাখার মাধ্যমে এ বিষয়ে জবাব দাখিল করা হবে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

সিলেটের লালাবাজারে নদীর উপর পায়ে চলার সেতু ভেঙে ফেলায় হাইকোর্টের রুল জারি

আপডেট সময় : ১২:১৭:০৮ পূর্বাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ১৫ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
Spread the love

সিলেটের দক্ষিণ সুরমার লালাবাজারে বাসিয়া নদীর উপর নির্মিত ঐতিহ্যবাহী পায়ে চলার পুরনো সেতুটি ভেঙে ফেলার ঘটনায় এলজিডি সিলেটের নির্বাহী প্রকৌশলীসহ ৭ জনের বিরুদ্ধে রুল জারি করেছে হাইকোর্টের একটি বেঞ্চ।

গত ৬ ফেব্রুয়ারি লালাবাজারের ৪১ জন ব্যবসায়ীর পক্ষে টিলাবাড়ি গ্রামের আজাম আলীর ছেলে আব্দুল করিমের দায়ের করা রিটের (নং ১১৪১/২৪) প্রেক্ষিতে হাইকোর্টের বিচারপতি নাজমা হায়দার ও কাজী জিন্নাত হক এ রুল জারি করেন।

রুলে লালাবাজারের পশ্চিম বাজারে বাসিয়া নদীর উপর নতুন সেতু নির্মাণের জন্য পুরাতন সেতুটি ভাঙার কারণ জানতে চেয়েছেন হাইকোর্ট। একই সঙ্গে নতুন সেতু নির্মাণের জন্য বিগত ২০২৩ সালের ২৬ নভেম্বরের  ( স্মারক নং৪৬০২৯১০০.০০০.১৪.৪৮৮.২৩-৪১০১) ওয়ার্ক অর্ডারটি কেন বাতিল হবে না-এ মর্মে আগামী ৫ মার্চের মধ্যে এলজিডিকে কারণ দর্শাতে বলেছে হাইকোর্ট।

রিটকারী আব্দুল করিম বলেন, আমরা ৬৫ জন ব্যবসায়ীর স্বাক্ষর নিয়ে হাইকোর্টে রিট করেছি। আমাদের দাবি, পুরনো ব্রীজ জায়গায় রেখে দক্ষিণ দিকে নতুন ব্রীজ করা হোক।

লালাবাজারের ব্যবসায়ী ধন মিয়া বলেন, আমাদের পায়ে চলার ব্রীজটি অনেক পুরনো। পুরনো ব্রীজটি না ভেঙে দক্ষিণ দিকে নতুন ব্রীজ করার দাবি জানিয়ে আসছি আমরা। এতে ঐতিহ্যবাহী সেতু রক্ষা পাবে। পাশাপাশি নতুন ব্রীজের সড়কের কারণে শত বছরের পুরনো বাজারটি ক্ষতিগ্রস্ত হবে না। কিন্তু এলজিডির প্রকৌশলীরা আমাদের দাবি না মেনে ঐতিহ্যবাহী ব্রীজটি ভেঙে ফেলেছেন। তাই আমরা ব্যবসায়ীরা হাইকোর্টে রিট করেছি।

দক্ষিণ সুরমা উপজেলার লালা বাজার ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান তোয়াজিদুল হক তুহিন বলেন, মূল পুরনো ফুট ব্রীজ জায়গায় রেখে দক্ষিণ দিকে নতুন ব্রীজ করার দাবি জানিয়ে আসছেন ব্যবসায়ীরা। এতে ফুট ব্রীজটি রক্ষা পেতো, আবার নতুন ব্রীজ নির্মাণ হতো। এপ্রোচ সড়কের কারণে শত বছরের পুরনো লালা বাজার ক্ষতিগ্রস্ত হতো না।

সিলেট এলজিডির নির্বাহী প্রকৌশলী মো. ফারুক হোসেন বলেন, লালাবাজারে একটি নতুন সেতু নির্মাণের জন্য আমরা পুরনো ব্রীজটি ভেঙে ফেলেছি। এ বিষয়ে হাইকোর্টের রিট বা রুলের কাগজপত্র আমরা এখনো পাইনি। নথি পাওয়ার পর আমাদের আইন শাখার মাধ্যমে এ বিষয়ে জবাব দাখিল করা হবে।