ঢাকা ১০:২২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
গার্ল গাইড্স এসোসিয়েশন সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব চিন্তা দিবস পালন শুধু রোহিঙ্গা না, পুরো বার্মা একটা জটিল জিনিস ডয়চে ভেলের এক অনুষ্ঠানে ড. ইউনূস ছাতকে সুবিধা বঞ্চিত একজনকে রোটারী ক্লাব অব সিলেট মিডটাউনের ঘর হস্থান্তর মুরারিচাঁদ কলেজের ইতিহাস ও ঐতিহ্য অনুষঙ্গ এবং প্রাসঙ্গিক ভাবনা শীর্ষক মুক্ত আলোচনা জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য হতে চায় ফিলিস্তিন; ফিলিস্তিন প্রতিনিধি দলের প্রধান রিয়াদ মনসুর সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত ভারতের শিলচরের সাহিত্য-সংস্কৃতি কর্মীদের সিলেটে সৌজন্য সাক্ষাৎ ছড়াকার সুফিয়ান আহমদ চৌধুরী ছড়াশিল্পের অনন্য এক দিকপাল: প্রফেসর হারুনুর রশীদ ডাক্তারের পরামর্শে চার মাস কারও সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন না বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ বিবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সাইদুর রহমান রেনুর পিতার নামাজে জানাজা আজ দরগা মাসজিদে

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে সাজাপ্রাপ্ত এক আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশ-গ্রামবাসী সংঘর্ষ; ৬ জন আহত

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধি
  • আপডেট সময় : ০৯:৪০:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪ ৬১ বার পড়া হয়েছে

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে সাজাপ্রাপ্ত এক আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশ ও গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশসহ আহত হয়েছে ৬ জন।

শনিবার (১৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের রতনপুর নামক গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিয়েছেন তারা। এ ঘটনায় ওইদিন রাতে চারজনের নামে একটি মামলা করেন পুলিশ।

জানা গেছে, শনিবার সন্ধ্যার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এএসআই হামিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ৪ সদস্যের একটি দল সাজাপ্রাপ্ত আসামি রফিকুল ইসলাম ওরফে সাগরকে রতনপুর এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ। এ সময় পুলিশের সঙ্গে আসামির বাগবিতণ্ডা ও ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। এতে এএসআই আশরাফুল ইসলামের নাক ফেটে যায় এবং আসামিকে বেধড়ক মারধর করে থানায় নেয়। ক্ষিপ্ত হয়ে ১০-১২টি মটরসাইকেলে করে ২০-২২ জনের একটি পুলিশের দল পুনরায় ওই ঘটনাস্থলে গিয়ে দোকানপাট ও ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে। এ ছাড়া অকথ্য গালিগালাজ ও নিরীহ জনসাধারণকে মারধর করে। এতে আহত হয় জাকির হোসেন, আব্দুল্লাহ, তরিকুল ইসলাম তারেক ও সৈয়দ আলী। এ ঘটনায় ওই এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে আতঙ্কের।

রৌমারী থানার ওসি আব্দুল্লাহিল জামানের মোবাইলে কল করলে তিনি বলেন, আমি রংপুরে আছি, আপনি এসআই আনছার আলীর সঙ্গে কথা বলেন।

রৌমারী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আনছার আলী বলেন, রতনপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে রফিকুল ইসলাম ওরফে সাগর একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ও মাদক মামলা এবং হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি। শনিবার সন্ধ্যার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করতে গেলে পুলিশের ওপর হামলা চালায় আসামির স্বজনরা। এতে এএসআই আশরাফুল ইসলামের নাক ফেটে যায়। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে সাজাপ্রাপ্ত এক আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশ-গ্রামবাসী সংঘর্ষ; ৬ জন আহত

আপডেট সময় : ০৯:৪০:২৭ পূর্বাহ্ন, সোমবার, ১৫ জানুয়ারী ২০২৪

কুড়িগ্রাম প্রতিনিধিঃ

কুড়িগ্রামের রৌমারীতে সাজাপ্রাপ্ত এক আসামি ধরতে গিয়ে পুলিশ ও গ্রামবাসীর মধ্যে সংঘর্ষ হয়েছে। এতে পুলিশসহ আহত হয়েছে ৬ জন।

শনিবার (১৩ জানুয়ারি) সন্ধ্যার দিকে উপজেলার সদর ইউনিয়নের রতনপুর নামক গ্রামে এ ঘটনা ঘটে।

পরে উপজেলা স্বাস্থ্য কমপ্লেক্সসহ বিভিন্ন স্থানে চিকিৎসা নিয়েছেন তারা। এ ঘটনায় ওইদিন রাতে চারজনের নামে একটি মামলা করেন পুলিশ।

জানা গেছে, শনিবার সন্ধ্যার দিকে গোপন সংবাদের ভিত্তিতে এএসআই হামিদুল ইসলামের নেতৃত্বে ৪ সদস্যের একটি দল সাজাপ্রাপ্ত আসামি রফিকুল ইসলাম ওরফে সাগরকে রতনপুর এলাকা থেকে আটক করে পুলিশ। এ সময় পুলিশের সঙ্গে আসামির বাগবিতণ্ডা ও ধস্তাধস্তির ঘটনা ঘটে। এতে এএসআই আশরাফুল ইসলামের নাক ফেটে যায় এবং আসামিকে বেধড়ক মারধর করে থানায় নেয়। ক্ষিপ্ত হয়ে ১০-১২টি মটরসাইকেলে করে ২০-২২ জনের একটি পুলিশের দল পুনরায় ওই ঘটনাস্থলে গিয়ে দোকানপাট ও ঘরবাড়ি ভাঙচুর করে। এ ছাড়া অকথ্য গালিগালাজ ও নিরীহ জনসাধারণকে মারধর করে। এতে আহত হয় জাকির হোসেন, আব্দুল্লাহ, তরিকুল ইসলাম তারেক ও সৈয়দ আলী। এ ঘটনায় ওই এলাকায় সৃষ্টি হয়েছে আতঙ্কের।

রৌমারী থানার ওসি আব্দুল্লাহিল জামানের মোবাইলে কল করলে তিনি বলেন, আমি রংপুরে আছি, আপনি এসআই আনছার আলীর সঙ্গে কথা বলেন।

রৌমারী থানার উপপরিদর্শক (এসআই) আনছার আলী বলেন, রতনপুর গ্রামের আব্দুস সালামের ছেলে রফিকুল ইসলাম ওরফে সাগর একজন সাজাপ্রাপ্ত আসামি ও মাদক মামলা এবং হত্যাসহ একাধিক মামলার আসামি। শনিবার সন্ধ্যার দিকে তাকে গ্রেপ্তার করতে গেলে পুলিশের ওপর হামলা চালায় আসামির স্বজনরা। এতে এএসআই আশরাফুল ইসলামের নাক ফেটে যায়। এ ঘটনায় থানায় একটি মামলা হয়েছে।