ঢাকা ১০:৪২ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
গার্ল গাইড্স এসোসিয়েশন সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব চিন্তা দিবস পালন শুধু রোহিঙ্গা না, পুরো বার্মা একটা জটিল জিনিস ডয়চে ভেলের এক অনুষ্ঠানে ড. ইউনূস ছাতকে সুবিধা বঞ্চিত একজনকে রোটারী ক্লাব অব সিলেট মিডটাউনের ঘর হস্থান্তর মুরারিচাঁদ কলেজের ইতিহাস ও ঐতিহ্য অনুষঙ্গ এবং প্রাসঙ্গিক ভাবনা শীর্ষক মুক্ত আলোচনা জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য হতে চায় ফিলিস্তিন; ফিলিস্তিন প্রতিনিধি দলের প্রধান রিয়াদ মনসুর সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত ভারতের শিলচরের সাহিত্য-সংস্কৃতি কর্মীদের সিলেটে সৌজন্য সাক্ষাৎ ছড়াকার সুফিয়ান আহমদ চৌধুরী ছড়াশিল্পের অনন্য এক দিকপাল: প্রফেসর হারুনুর রশীদ ডাক্তারের পরামর্শে চার মাস কারও সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন না বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ বিবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সাইদুর রহমান রেনুর পিতার নামাজে জানাজা আজ দরগা মাসজিদে

ভারতের চেন্নাইয়ে স্বামীকে ফাঁসাতে গিয়ে স্ত্রীর ৫ বছরের কারাদণ্ড !

প্রতিনিধির নাম
  • আপডেট সময় : ০৫:০০:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৫৮ বার পড়া হয়েছে

ভারতের চেন্নাইয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে তাদের নিজেদের মেয়েকে ধর্ষণের মিথ্যা অভিযোগ করেছিলেন এক নারী। ছয় বছর ধরে শুনানি চলার পর আদালতে অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় ওই নারীকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে ছয় হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।  

ওই নারী অভিযোগ করেছিলেন বাবার নিরন্তর নিগ্রহের কারণেই গর্ভবতী হয়ে পড়েছে নাবালিকা। অভিযোগের প্রমাণ হিসাবে মেয়ের প্রস্রাব পরীক্ষার রিপোর্ট এবং আরও বেশ কয়েকটি পরীক্ষার রিপোর্ট আদালতে জমা দিয়েছিলেন তিনি। 

আদালতে শুনানিতে দেখা যায় যে গবেষণাগার থেকে পরীক্ষা করিয়ে রিপোর্ট জমা দিয়েছিলেন তিনি, এক সময় তিনি নিজেই সেখানে ল্যাবরেটরি অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে কাজ করতেন। তারই সুযোগ নিয়ে জাল রিপোর্ট তৈরি করেন । এমনকি, চিকিৎসকদের মিথ্যা বয়ান দিতেও বাধ্য করেন।

এরপর তার মেয়ের বয়ান রেকর্ড করে আদালত। তাতেই প্রমাণ হয়, ওই নারীর আনা সমস্ত অভিযোগই মিথ্যা। আরও জানা যায়, সেই সময় পারিবারিক আদালতে স্বামীর সঙ্গে তার বিবাহবিচ্ছেদের মামলা চলছিল। স্বামীকে ফাঁসাতেই তিনি এমন কাজ করেন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ভারতের চেন্নাইয়ে স্বামীকে ফাঁসাতে গিয়ে স্ত্রীর ৫ বছরের কারাদণ্ড !

আপডেট সময় : ০৫:০০:৩০ অপরাহ্ন, শুক্রবার, ৯ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

ভারতের চেন্নাইয়ে স্বামীর বিরুদ্ধে তাদের নিজেদের মেয়েকে ধর্ষণের মিথ্যা অভিযোগ করেছিলেন এক নারী। ছয় বছর ধরে শুনানি চলার পর আদালতে অভিযোগ মিথ্যা প্রমাণিত হওয়ায় ওই নারীকে পাঁচ বছরের সশ্রম কারাদণ্ড দেওয়া হয়েছে। সঙ্গে ছয় হাজার টাকা জরিমানাও করা হয়েছে।  

ওই নারী অভিযোগ করেছিলেন বাবার নিরন্তর নিগ্রহের কারণেই গর্ভবতী হয়ে পড়েছে নাবালিকা। অভিযোগের প্রমাণ হিসাবে মেয়ের প্রস্রাব পরীক্ষার রিপোর্ট এবং আরও বেশ কয়েকটি পরীক্ষার রিপোর্ট আদালতে জমা দিয়েছিলেন তিনি। 

আদালতে শুনানিতে দেখা যায় যে গবেষণাগার থেকে পরীক্ষা করিয়ে রিপোর্ট জমা দিয়েছিলেন তিনি, এক সময় তিনি নিজেই সেখানে ল্যাবরেটরি অ্যাসিস্ট্যান্ট হিসাবে কাজ করতেন। তারই সুযোগ নিয়ে জাল রিপোর্ট তৈরি করেন । এমনকি, চিকিৎসকদের মিথ্যা বয়ান দিতেও বাধ্য করেন।

এরপর তার মেয়ের বয়ান রেকর্ড করে আদালত। তাতেই প্রমাণ হয়, ওই নারীর আনা সমস্ত অভিযোগই মিথ্যা। আরও জানা যায়, সেই সময় পারিবারিক আদালতে স্বামীর সঙ্গে তার বিবাহবিচ্ছেদের মামলা চলছিল। স্বামীকে ফাঁসাতেই তিনি এমন কাজ করেন।