ঢাকা ০৬:০৯ অপরাহ্ন, মঙ্গলবার, ২৩ এপ্রিল ২০২৪, ১০ বৈশাখ ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
মেলান্দহে ট্রাক ও সিএনজির মুখোমুখি সংঘর্ষে সাত বৎসরের এক শিশু নিহত সিলেটে ডিবি পুলিশের অভিযানে জুয়া খেলার সামগ্রীসহ ১০ জন জুয়ারী গ্রেফতার সিলেটে পুলিশের অভিযানে বিপুল পরিমাণ ইয়াবা ট্যাবলেট সহ ১ জন আটক লালাবাজার বিদ্যালয় ও কলেজের ‘রূপকল্প ২০৩০’ প্রণয়নে সুধীজনের মতবিনিময় সিলেটের আখালিয়ায় বিদ্যুৎস্পৃষ্ট হয়ে নির্মাণ শ্রমিকের মৃত্যু: স্বজনদের আহাজারি যুক্তরাষ্ট্র আওয়ামীলীগের সাংগঠনিক সম্পাদকের দায়িত্বে সিলেটের দুরুদ মিয়া রনেল সিলেট জেলা ছাত্রলীগ ও সদর উপজেলা ছাত্রলীগের বৃক্ষরোপণ কর্মসূচী পালন মানবাধিকার লঙ্ঘনের অভিযোগে সেনাবাহিনীর একটি ইউনিটের বিরুদ্ধে যুক্তরাষ্ট্রের নিষেধাজ্ঞা ! সিলেটে ডিবির অভিযানে অসামাজিক কার্যকলাপে জড়িত ৯ জন গ্রেফতার সিলেটে আর্মড পুলিশের অভিযানে ২টি চোরাই মোটরসাইকেলসহ ১জন আটক

পাকিস্তানে ক্ষমতা ভাগাভাগির মধ্যে আটকে আছে পিএমএল-এন ও পিপিপি’র সমঝোতা !

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
  • আপডেট সময় : ১১:২৭:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ৩১ বার পড়া হয়েছে
Spread the love

পাকিস্তানে জোট সরকার গঠন নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরে আলোচনা করে আসছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পিএমএল-এন ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির দল। কয়েক দফা আলোচনা শেষে সমঝোতায় আসার ঘোষণাও দিয়েছে দল দুটি।

এখন তাদের আলোচনা ক্ষমতা ভাগাভাগির মধ্যে আটকে আছে। এমন পরিস্থিতিতে ক্ষমতা ভাগ-বাটোয়ারায় বিন্দুমাত্র ছাড় না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল। ফলে জোট গঠন নিয়ে দুদলের আলোচনার মধ্যে অচলাবস্থার দেখা দিতে পারে। খবর দ্য ডনের।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সুপ্রিম কোর্টে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় বিলাওয়াল বলেছেন, তিনি ও তার দল পিপিপি তাদের অবস্থানে অনড়। যদি কেউ নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন না করে তাহলে তিনিও অবস্থান পরিবর্তন করবেন না।

তিনি বলেন, অন্য কেউ যদি তাদের অবস্থান পরিবর্তন করতে চায় তবে অগ্রগতি হতে পারে। যদি তারা পরিবর্তন করতে রাজি না হয় তাহলে আমি বলছি একটা অচলাবস্থা দেখা দিতে পারে। এটি গণতন্ত্র বা সংসদীয় ব্যবস্থার জন্য উপকারী হবে না।

পিপিপির চেয়ারম্যান বলেন, পিএমএল-এন যদি আমার ভোট চায় তাহলে আমার শর্ত মানতে হবে। তা নাহলে আমি তাদেরটা মানব না।

তিনি বলেন, গুরুত্বহীন কারণে সরকার গঠনে দেরি হচ্ছে। এটা পাকিস্তানের গণতন্ত্রকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। যত দ্রুত এটি সমাধান হবে, নতুন সরকারের জন্য তত ভালো হবে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই নির্বাচনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা প্রথম, পিএমএল-এন দ্বিতীয় ও পিপিপি তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। তবে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে পারেনি। ফলে জোট গঠন করে সরকারে আসার চেষ্টা করছে বড় দলগুলো।

পাকিস্তানি গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, পিএমএল- এনের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হলেন শাহবাজ শরিফ। তাকে জাতীয় পরিষদে সমর্থন দেওয়ার কথা জানিয়েছে পিপিপি। অন্যদিকে প্রেসিডেন্ট পদে বাবা আসিফ আলি জারদারির নাম ঘোষণা করেছেন বিলাওয়াল। তবে আসিফ আলিকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়ে এখানো আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো কিছু জানায়নি পিএমএল-এন।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

পাকিস্তানে ক্ষমতা ভাগাভাগির মধ্যে আটকে আছে পিএমএল-এন ও পিপিপি’র সমঝোতা !

আপডেট সময় : ১১:২৭:০৪ পূর্বাহ্ন, বুধবার, ২১ ফেব্রুয়ারী ২০২৪
Spread the love

পাকিস্তানে জোট সরকার গঠন নিয়ে বেশ কয়েক দিন ধরে আলোচনা করে আসছে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের পিএমএল-এন ও সাবেক পররাষ্ট্রমন্ত্রী বিলাওয়াল ভুট্টো জারদারির দল। কয়েক দফা আলোচনা শেষে সমঝোতায় আসার ঘোষণাও দিয়েছে দল দুটি।

এখন তাদের আলোচনা ক্ষমতা ভাগাভাগির মধ্যে আটকে আছে। এমন পরিস্থিতিতে ক্ষমতা ভাগ-বাটোয়ারায় বিন্দুমাত্র ছাড় না দেওয়ার ঘোষণা দিয়েছেন পিপিপির চেয়ারম্যান বিলাওয়াল। ফলে জোট গঠন নিয়ে দুদলের আলোচনার মধ্যে অচলাবস্থার দেখা দিতে পারে। খবর দ্য ডনের।

মঙ্গলবার (২০ ফেব্রুয়ারি) সুপ্রিম কোর্টে সাংবাদিকদের সাথে কথা বলার সময় বিলাওয়াল বলেছেন, তিনি ও তার দল পিপিপি তাদের অবস্থানে অনড়। যদি কেউ নিজেদের অবস্থান পরিবর্তন না করে তাহলে তিনিও অবস্থান পরিবর্তন করবেন না।

তিনি বলেন, অন্য কেউ যদি তাদের অবস্থান পরিবর্তন করতে চায় তবে অগ্রগতি হতে পারে। যদি তারা পরিবর্তন করতে রাজি না হয় তাহলে আমি বলছি একটা অচলাবস্থা দেখা দিতে পারে। এটি গণতন্ত্র বা সংসদীয় ব্যবস্থার জন্য উপকারী হবে না।

পিপিপির চেয়ারম্যান বলেন, পিএমএল-এন যদি আমার ভোট চায় তাহলে আমার শর্ত মানতে হবে। তা নাহলে আমি তাদেরটা মানব না।

তিনি বলেন, গুরুত্বহীন কারণে সরকার গঠনে দেরি হচ্ছে। এটা পাকিস্তানের গণতন্ত্রকে ক্ষতিগ্রস্ত করেছে। যত দ্রুত এটি সমাধান হবে, নতুন সরকারের জন্য তত ভালো হবে।

গত ৮ ফেব্রুয়ারি পাকিস্তানে জাতীয় ও প্রাদেশিক পরিষদের নির্বাচন অনুষ্ঠিত হয়েছে। এই নির্বাচনে সাবেক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খানের দল পিটিআই সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা প্রথম, পিএমএল-এন দ্বিতীয় ও পিপিপি তৃতীয় স্থান অর্জন করেছে। তবে কোনো দলই একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা অর্জন করতে পারেনি। ফলে জোট গঠন করে সরকারে আসার চেষ্টা করছে বড় দলগুলো।

পাকিস্তানি গণমাধ্যমের খবর অনুযায়ী, পিএমএল- এনের প্রধানমন্ত্রী প্রার্থী হলেন শাহবাজ শরিফ। তাকে জাতীয় পরিষদে সমর্থন দেওয়ার কথা জানিয়েছে পিপিপি। অন্যদিকে প্রেসিডেন্ট পদে বাবা আসিফ আলি জারদারির নাম ঘোষণা করেছেন বিলাওয়াল। তবে আসিফ আলিকে সমর্থন দেওয়ার বিষয়ে এখানো আনুষ্ঠানিকভাবে কোনো কিছু জানায়নি পিএমএল-এন।