ঢাকা ১০:৪৯ অপরাহ্ন, শনিবার, ২৪ ফেব্রুয়ারী ২০২৪, ১২ ফাল্গুন ১৪৩০ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
গার্ল গাইড্স এসোসিয়েশন সিলেট অঞ্চলের উদ্যোগে বিশ্ব চিন্তা দিবস পালন শুধু রোহিঙ্গা না, পুরো বার্মা একটা জটিল জিনিস ডয়চে ভেলের এক অনুষ্ঠানে ড. ইউনূস ছাতকে সুবিধা বঞ্চিত একজনকে রোটারী ক্লাব অব সিলেট মিডটাউনের ঘর হস্থান্তর মুরারিচাঁদ কলেজের ইতিহাস ও ঐতিহ্য অনুষঙ্গ এবং প্রাসঙ্গিক ভাবনা শীর্ষক মুক্ত আলোচনা জাতিসংঘের পূর্ণ সদস্য হতে চায় ফিলিস্তিন; ফিলিস্তিন প্রতিনিধি দলের প্রধান রিয়াদ মনসুর সিলেট মেট্রোপলিটন পুলিশের মাসিক অপরাধ পর্যালোচনা সভা অনুষ্ঠিত ভারতের শিলচরের সাহিত্য-সংস্কৃতি কর্মীদের সিলেটে সৌজন্য সাক্ষাৎ ছড়াকার সুফিয়ান আহমদ চৌধুরী ছড়াশিল্পের অনন্য এক দিকপাল: প্রফেসর হারুনুর রশীদ ডাক্তারের পরামর্শে চার মাস কারও সঙ্গে সাক্ষাৎ করবেন না বিএনপি নেতা খন্দকার মোশাররফ বিবিসিসিআই প্রেসিডেন্ট সাইদুর রহমান রেনুর পিতার নামাজে জানাজা আজ দরগা মাসজিদে

ঘোষিত ফলাফলে তেহরিক–ই– ইনসাফ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি আসনে বিজয়ী

আন্তর্জাতিক ডেস্ক:
  • আপডেট সময় : ০১:৫০:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪ ১০৪ বার পড়া হয়েছে

পাকিস্তানে গণপরিষদ নির্বাচনে ২৬৫ আসনের মধ্যে ২৫০টির ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসন দখলে নিয়েছে ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে পাকিস্তান নির্বাচন কমিশনের (ইসিপি) ওয়েবসাইট থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়। এরপর থেকে শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) ভোর রাত ৬টা পর্যন্ত ঘোষিত ফলে দেখা যাচ্ছে, এবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ৯৯ আসনে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। যাদের প্রায় সবাই পিটিআইয়ের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। যদিও এককভাবে সরকার গঠনে প্রয়োজন ১৩৪ আসন।

বাকি আসনগুলোর মধ্যে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) পেয়েছে ৭১টি আসন। প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) দখলে গেছে ৫৩টি আসন। এ ছাড়া অন্যান্য দলের দখলে গেছে ২৭টি।

এদিকে, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের তুলনায় পরিষ্কার ব্যবধানে পিছিয়ে থাকলেও সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং পিএমএল-এন নেতা নওয়াজ শরিফ বলেছেন, সাধারণ নির্বাচনে তার দল ‘একক বৃহত্তর দল’ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

তবে সরকার গঠনের জন্য দলটি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না স্বীকার করে বিলাওয়াল ভুট্টোর পিপিপিসহ মাওলানা ফজলুর রহমান ও মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্টের খালিদ মকবুল সিদ্দিকীকে জোট সরকার গঠনের প্রস্তাব দেন।

গতকাল শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে লাহোরে সমর্থকদের উদ্দেশে এক ভাষণে নওয়াজ বলেন, আমরা সব দল এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ম্যান্ডেটকে সম্মান করি।

তিনি আরও বলেন, সব দলের দায়িত্ব একসঙ্গে সরকার গঠন করা এবং পাকিস্তানকে বর্তমান সংকট থেকে বের করে আনা। আমরা যদি সবাই একসঙ্গে কাজ করি, তবেই পাকিস্তান এই সংকট থেকে বেরিয়ে আসবে।

তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ বলেন, পাকিস্তানের অন্তত ১০ বছরের স্থিতিশীলতা দরকার। যারা সংঘাতের মেজাজে আছেন, তাদের বলতে চাই—আমরা কোনো লড়াই চাই না।

তিনি বলেন, আমাদের সবাইকে একসঙ্গে বসে সমস্যা সমাধান করতে হবে এবং পাকিস্তানকে একবিংশ শতাব্দীতে নিয়ে যেতে হবে। কিন্তু ভুলের কারণে আমরা তা আগে করতে পারিনি।’

এ সময় পিএমএল-এন একক দল হিসেবে সরকার গঠনের অবস্থানে নেই স্বীকার করে নওয়াজ তার সাবেক জোটের শরিকদের একসঙ্গে বসে ঐক্য সরকার গঠন করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, আমি শেহবাজ শরিফকে আজ রাতে এই বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার দায়িত্ব দিয়েছি। আমি তাকে আসিফ আলী জারদারি, মাওলানা ফজলুর রহমান ও খালিদ মকবুল সিদ্দিকীর সঙ্গে দেখা করতে বলেছি।

প্রসঙ্গত, পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের মোট আসনসংখ্যা ৩৩৬টি। এর মধ্যে ২৬৬ আসনে সরাসরি ভোট হয়। এ ছাড়া বাকি ৭০টি আসন সংরক্ষিত। এসব আসনের মধ্যে ৬০টি নারীদের ও ১০টি সংখ্যালঘুদের।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

ঘোষিত ফলাফলে তেহরিক–ই– ইনসাফ সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা সবচেয়ে বেশি আসনে বিজয়ী

আপডেট সময় : ০১:৫০:১৬ অপরাহ্ন, শনিবার, ১০ ফেব্রুয়ারী ২০২৪

পাকিস্তানে গণপরিষদ নির্বাচনে ২৬৫ আসনের মধ্যে ২৫০টির ফলাফল প্রকাশ করা হয়েছে। এর মধ্যে সবচেয়ে বেশি আসন দখলে নিয়েছে ইমরান খানের দল পাকিস্তান তেহরিক-ই-ইনসাফ (পিটিআই) সমর্থিত স্বতন্ত্র প্রার্থীরা।

শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) সকালে পাকিস্তান নির্বাচন কমিশনের (ইসিপি) ওয়েবসাইট থেকে এ তথ্য জানা গেছে।

এর আগে, গত বৃহস্পতিবার (৮ ফেব্রুয়ারি) পাকিস্তানে জাতীয় নির্বাচনের ভোটগ্রহণ শেষ হয়। এরপর থেকে শনিবার (১০ ফেব্রুয়ারি) ভোর রাত ৬টা পর্যন্ত ঘোষিত ফলে দেখা যাচ্ছে, এবারের নির্বাচনে সবচেয়ে বেশি ৯৯ আসনে জয়ী হয়েছেন স্বতন্ত্র প্রার্থীরা। যাদের প্রায় সবাই পিটিআইয়ের সমর্থন নিয়ে নির্বাচনে লড়েছেন। যদিও এককভাবে সরকার গঠনে প্রয়োজন ১৩৪ আসন।

বাকি আসনগুলোর মধ্যে সাবেক প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ শরিফের দল পাকিস্তান মুসলিম লীগ-নওয়াজ (পিএমএল-এন) পেয়েছে ৭১টি আসন। প্রয়াত প্রধানমন্ত্রী বেনজির ভুট্টোর দল পাকিস্তান পিপলস পার্টির (পিপিপি) দখলে গেছে ৫৩টি আসন। এ ছাড়া অন্যান্য দলের দখলে গেছে ২৭টি।

এদিকে, স্বতন্ত্র প্রার্থীদের তুলনায় পরিষ্কার ব্যবধানে পিছিয়ে থাকলেও সাবেক প্রধানমন্ত্রী এবং পিএমএল-এন নেতা নওয়াজ শরিফ বলেছেন, সাধারণ নির্বাচনে তার দল ‘একক বৃহত্তর দল’ হিসেবে আবির্ভূত হয়েছে।

তবে সরকার গঠনের জন্য দলটি একক সংখ্যাগরিষ্ঠতা পাবে না স্বীকার করে বিলাওয়াল ভুট্টোর পিপিপিসহ মাওলানা ফজলুর রহমান ও মুত্তাহিদা কওমি মুভমেন্টের খালিদ মকবুল সিদ্দিকীকে জোট সরকার গঠনের প্রস্তাব দেন।

গতকাল শুক্রবার (৯ ফেব্রুয়ারি) রাতে লাহোরে সমর্থকদের উদ্দেশে এক ভাষণে নওয়াজ বলেন, আমরা সব দল এবং স্বতন্ত্র প্রার্থীদের ম্যান্ডেটকে সম্মান করি।

তিনি আরও বলেন, সব দলের দায়িত্ব একসঙ্গে সরকার গঠন করা এবং পাকিস্তানকে বর্তমান সংকট থেকে বের করে আনা। আমরা যদি সবাই একসঙ্গে কাজ করি, তবেই পাকিস্তান এই সংকট থেকে বেরিয়ে আসবে।

তিনবারের প্রধানমন্ত্রী নওয়াজ বলেন, পাকিস্তানের অন্তত ১০ বছরের স্থিতিশীলতা দরকার। যারা সংঘাতের মেজাজে আছেন, তাদের বলতে চাই—আমরা কোনো লড়াই চাই না।

তিনি বলেন, আমাদের সবাইকে একসঙ্গে বসে সমস্যা সমাধান করতে হবে এবং পাকিস্তানকে একবিংশ শতাব্দীতে নিয়ে যেতে হবে। কিন্তু ভুলের কারণে আমরা তা আগে করতে পারিনি।’

এ সময় পিএমএল-এন একক দল হিসেবে সরকার গঠনের অবস্থানে নেই স্বীকার করে নওয়াজ তার সাবেক জোটের শরিকদের একসঙ্গে বসে ঐক্য সরকার গঠন করার আহ্বান জানান।

তিনি বলেন, আমি শেহবাজ শরিফকে আজ রাতে এই বিষয়ে পদক্ষেপ নেওয়ার দায়িত্ব দিয়েছি। আমি তাকে আসিফ আলী জারদারি, মাওলানা ফজলুর রহমান ও খালিদ মকবুল সিদ্দিকীর সঙ্গে দেখা করতে বলেছি।

প্রসঙ্গত, পাকিস্তান জাতীয় পরিষদের মোট আসনসংখ্যা ৩৩৬টি। এর মধ্যে ২৬৬ আসনে সরাসরি ভোট হয়। এ ছাড়া বাকি ৭০টি আসন সংরক্ষিত। এসব আসনের মধ্যে ৬০টি নারীদের ও ১০টি সংখ্যালঘুদের।