ঢাকা ০৪:২৫ অপরাহ্ন, বৃহস্পতিবার, ২০ জুন ২০২৪, ৬ আষাঢ় ১৪৩১ বঙ্গাব্দ
শিরোনাম ::
ত্রাণের অভাব হবে না, সাহস নিয়ে দূর্যোগ মোকাবেলা করুন: দুর্যোগ ও ত্রাণ প্রতিমন্ত্রী মহিবুল ইসলাম সিলেটে মুক্তিপণ না পেয়ে ছাদ থেকে ফেলে এক যুবককে হত্যার অভিযোগ ডাঃ জোবাইদা রহমানের জন্মদিনে সিলেটে বন্যার্তদের মাঝে খাবার বিতরণ সিলেটের বন্যা প্রতিরোধে স্থায়ী ব্যবস্থা গ্রহন করা হবে: মেয়র আনোয়ারুজ্জামান চৌধুরী পাওয়ার নিউজ বিডি’র উপদেষ্টা যুক্তরাজ্য প্রবাসী মো: আব্দুল গনি’র ঈদ শুভেচ্ছা বিএনপিতে রদবদল; সিলেট বিভাগে দায়িত্ব পেলেন জি কে গৌছ ও মিফতাহ্ সিদ্দিকী বাবার বিচার চেয়ে ডরিনের পাশে থাকা সাইদুল করিম মিন্টুই এমপি আনার হত্যায় গ্রেফতার ! সিলেটে আর্মড পুলিশের অভিযানে সাজাপ্রাপ্ত আসামি গ্রেফতার ‘ছাদ থেকে পড়ে’ ভাইরাল সেই শিশু হজযাত্রীর মৃত্যু ! ১ লাখ ১ টাকা কাবিনে শ্রীলঙ্কান তরুণীকে বিয়ে করলেন দুবাই প্রবাসী ফটিকছড়ির মোরশেদ

আমি নিজেকে বিধবা মনে করি: কারাভোগের পর মুক্তি পরবর্তী সাক্ষাৎকারে ডা. সাবরিনা

ডেস্ক রিপোর্ট
  • আপডেট সময় : ০১:২৯:৪৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৪ ৬৫ বার পড়া হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দীর্ঘদিন কারাভোগের পর গত কয়েকমাস আগে মুক্তি পেয়েছেন জে.কেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী।

করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় ১১ বছর করে কারাদণ্ড পেয়েছিলেন ডা. সাবরিনা ও তার স্বামী আরিফুল হক চৌধুরী।

২০২০ সালের ২৩ জুন করোনার ভুয়া সনদ দেওয়া, জালিয়াতি ও প্রতারণার অভিযোগে ডা. সাবরিনাসহ আরও ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে তেজগাঁও থানা পুলিশ। নিম্ন আদালতে তার সাজা হলেও উচ্চ আদালতে আপিল আবেদন করে জামিন পান তিনি। প্রায় তিন বছর কারাগারে কাটিয়ে গত বছরের ৫ জুন জামিনে মুক্তি পান সাবরিনা।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে নিজের কারাগারের জীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছেন তিনি। যেখানে ডা. সাবরিনা জানিয়েছেন, কারাগারে কাটানো ওই দিনগুলোতে বাবা-মাকে ছাড়া কাউকেই পাশে পাননি তিনি।

সাবরিনা বলেন, কারাগারে আমাকে কেউ দেখতে যায়নি। শুধু বাবা-মা পাশে ছিলেন। পৃথিবীতে বাবা-মায়ের চেয়ে আপন কেউ নেই। সব কষ্টে তারাই পাশে থাকেন।

এসময় স্বামী আরিফুলের প্রসঙ্গ উঠতে সাবরিনা বলেন, আমার স্বামী তো এখনও জেলেই আছে। তিনি আমার একমাস আগে থেকেই কারাবন্দি ছিলেন। সে আমার জন্য এখন মৃত। আমি নিজেকে বিধবা মনে করি।

কারাগারে থাকার অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, হাজতি হিসেবে আমার অভিজ্ঞতা ছিল, কয়েদি হিসেবেও আমার অভিজ্ঞতা হয়েছে। শ্রেণিপ্রাপ্ত আসামি ছিলাম আবার ডিভিশনের আসামিও ছিলাম। একদম যে নর্মাল ওয়ার্ড যেখানে ৩৫-৪৭ জন আসামি থাকে সেখানেও আমি থেকেছি। সেখানে ২টা কম্বল দেওয়া হতো বিছিয়ে ঘুমানোর জন্য। সবার জন্য মুঠম হাত জায়গা বরাদ্দ ছিল। সবাই আমাকে আদর করে চার আঙুল জায়গা বেশি দিত। তারা বলত বিসিএস ক্যাডার, তাকে না হয় ৪ আঙুল জায়গা বেশিই দেই।

সাবরিনা আরও বলেন, কারাগারে সবাই আমাকে চিনতো। আমি তো খুব ভাইরাল ছিলাম সে সময়ে। সবাই জানতো ডা. সাবরিনা তাদের সঙ্গে থাকছেন।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ১৯ জুলাই ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর মুখ্য হাকিম তোফাজ্জল হোসেন এ ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী প্রতিষ্ঠানের সিইও আরিফুল চৌধুরীসহ আটজনকে ১১ বছরের কারাদণ্ড দেন। রায়ে দণ্ডবিধির ৪২০ ধারায় প্রত্যেককে তিন বছর কারাদণ্ড ও তিন হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে তিন মাসের সশ্রম কারাদণ্ড, দণ্ডবিধির ৪৬৬ ধারায় প্রত্যেককে চার বছর কারাদণ্ড ও চার হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে চার মাসের সশ্রম কারাদণ্ড এবং দণ্ডবিধির ৪৭১ ধারায় প্রত্যেককে চার বছর কারাদণ্ড ও চার হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও চার মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত।

নিউজটি শেয়ার করুন

আপলোডকারীর তথ্য
ট্যাগস :

আমি নিজেকে বিধবা মনে করি: কারাভোগের পর মুক্তি পরবর্তী সাক্ষাৎকারে ডা. সাবরিনা

আপডেট সময় : ০১:২৯:৪৮ পূর্বাহ্ন, রবিবার, ২৮ জানুয়ারী ২০২৪

ডেস্ক রিপোর্টঃ

দীর্ঘদিন কারাভোগের পর গত কয়েকমাস আগে মুক্তি পেয়েছেন জে.কেজি হেলথকেয়ারের চেয়ারম্যান ডা. সাবরিনা আরিফ চৌধুরী।

করোনাভাইরাসের নমুনা পরীক্ষা নিয়ে প্রতারণার অভিযোগে করা মামলায় ১১ বছর করে কারাদণ্ড পেয়েছিলেন ডা. সাবরিনা ও তার স্বামী আরিফুল হক চৌধুরী।

২০২০ সালের ২৩ জুন করোনার ভুয়া সনদ দেওয়া, জালিয়াতি ও প্রতারণার অভিযোগে ডা. সাবরিনাসহ আরও ছয়জনকে গ্রেপ্তার করে তেজগাঁও থানা পুলিশ। নিম্ন আদালতে তার সাজা হলেও উচ্চ আদালতে আপিল আবেদন করে জামিন পান তিনি। প্রায় তিন বছর কারাগারে কাটিয়ে গত বছরের ৫ জুন জামিনে মুক্তি পান সাবরিনা।

সম্প্রতি এক সাক্ষাৎকারে নিজের কারাগারের জীবনের অভিজ্ঞতার কথা তুলে ধরেছেন তিনি। যেখানে ডা. সাবরিনা জানিয়েছেন, কারাগারে কাটানো ওই দিনগুলোতে বাবা-মাকে ছাড়া কাউকেই পাশে পাননি তিনি।

সাবরিনা বলেন, কারাগারে আমাকে কেউ দেখতে যায়নি। শুধু বাবা-মা পাশে ছিলেন। পৃথিবীতে বাবা-মায়ের চেয়ে আপন কেউ নেই। সব কষ্টে তারাই পাশে থাকেন।

এসময় স্বামী আরিফুলের প্রসঙ্গ উঠতে সাবরিনা বলেন, আমার স্বামী তো এখনও জেলেই আছে। তিনি আমার একমাস আগে থেকেই কারাবন্দি ছিলেন। সে আমার জন্য এখন মৃত। আমি নিজেকে বিধবা মনে করি।

কারাগারে থাকার অভিজ্ঞতা জানাতে গিয়ে তিনি বলেন, হাজতি হিসেবে আমার অভিজ্ঞতা ছিল, কয়েদি হিসেবেও আমার অভিজ্ঞতা হয়েছে। শ্রেণিপ্রাপ্ত আসামি ছিলাম আবার ডিভিশনের আসামিও ছিলাম। একদম যে নর্মাল ওয়ার্ড যেখানে ৩৫-৪৭ জন আসামি থাকে সেখানেও আমি থেকেছি। সেখানে ২টা কম্বল দেওয়া হতো বিছিয়ে ঘুমানোর জন্য। সবার জন্য মুঠম হাত জায়গা বরাদ্দ ছিল। সবাই আমাকে আদর করে চার আঙুল জায়গা বেশি দিত। তারা বলত বিসিএস ক্যাডার, তাকে না হয় ৪ আঙুল জায়গা বেশিই দেই।

সাবরিনা আরও বলেন, কারাগারে সবাই আমাকে চিনতো। আমি তো খুব ভাইরাল ছিলাম সে সময়ে। সবাই জানতো ডা. সাবরিনা তাদের সঙ্গে থাকছেন।

উল্লেখ্য, ২০২২ সালের ১৯ জুলাই ঢাকার অতিরিক্ত মহানগর মুখ্য হাকিম তোফাজ্জল হোসেন এ ডা. সাবরিনা চৌধুরী ও তার স্বামী প্রতিষ্ঠানের সিইও আরিফুল চৌধুরীসহ আটজনকে ১১ বছরের কারাদণ্ড দেন। রায়ে দণ্ডবিধির ৪২০ ধারায় প্রত্যেককে তিন বছর কারাদণ্ড ও তিন হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে তিন মাসের সশ্রম কারাদণ্ড, দণ্ডবিধির ৪৬৬ ধারায় প্রত্যেককে চার বছর কারাদণ্ড ও চার হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে চার মাসের সশ্রম কারাদণ্ড এবং দণ্ডবিধির ৪৭১ ধারায় প্রত্যেককে চার বছর কারাদণ্ড ও চার হাজার টাকা জরিমানা, অনাদায়ে আরও চার মাসের সশ্রম কারাদণ্ড দেন আদালত।