No icon

বৃষ্টিতে বাঁধা, আজ ভারত-নিউজিল্যান্ড ১ম সেমিফাইনালে আজ বাকী অংশ খেলা হবে

স্পোর্টস ডেস্কঃ

এই ক্রিকেট বিশ্বকাপে এখনও পর্যন্ত সেরা দল ভারত। অপ্রতিরোধ্য, অনবদ্য পারফরমেন্সে বারবার জাত চেনাচ্ছে তারা। মঙ্গলবারও তার অন্যথা হল না। যদিও বৃষ্টিতে ম্যাচে ছেদ পড়ল বটে। কিন্তু যতটুকু খেলা ততটুকুটেই দারুণ প্রদর্শন ভারতের। 

প্রসঙ্গত, টসে জিতে প্রথম ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত নেয় কেন উইলিয়ামসনের নিউজিল্যান্ড। ভারত নামে ফিল্ডিং করতে। আর একদম প্রথম ওভার থেকেই আশাতীত ভালো বল করতে দেখা যায় ভারতীয় ফার্স্ট বোলার ভুবনেশ্বর এবং বুুুুমরাকে।

টুর্ণামেন্টের সেরা বোলিং অস্ত্র যেন প্রয়োগ করছিলেন তাঁরা। প্রথম দশ ওভারে ৩০ এর কম রান দিয়ে চাপে ফেলে দেন নিউজিল্যান্ডের ব্যাটসম্যানদের। মাত্র ৩.৩ বলেই গাপ্টিলের উইকেট তুলে নেন বুমরা। কেন উইলিয়ামসন ক্রিজে  দাঁড়িয়ে গেলেও, তিনিও পরাস্ত হন মাত্র ৬৭ রানে। তারপর টেলর খানিকটা হাল ধরেন।

ভালো বল করেন রবীন্দ্র জাডেজা, হার্দিক পান্ড্যরাও। উইকেট পান জাডেজা। বুমরা পান ২ উইকেট। ভুবনেশ্বর ১ উইকেট। রবীন্দ্র জাডেজা পান ১ উইকেট। আরেকটি আউট হয় চাহালের বলে। এই ম্যাচে বৃষ্টি শুরু হওয়ার আগে পর্যন্ত ৪৬.১ ওভারে নিউজিল্যান্ডের সংগ্রহ ৫ উইকেটে ২১১ রান।

উল্লেখ্য, মঙ্গলবার বৃষ্টিতে ভেস্তে গেল ম্যাচ। অনেকক্ষণ অপেক্ষার পর বুধবার শেষ থেকে শুরু হবে খেলা, এমনটাই সিদ্ধান্ত নেন আম্পায়াররা। মাঠে নেমে তিন আম্পায়ার নিজেদের মধ্যে আলোচনা সেরে নেন। তারপরই এই সিদ্ধান্ত। 

যদি মঙ্গলবার ডার্ক ওয়ার্থ লুইস নিয়মে খেলা মঙ্গলবার হত, তাহলে ৪৬ ওভার ভারতকে খেলতে হতো, জেতার জন্য তুলতে হত ২৩৭ রান। আর যদি কমপক্ষে ২০ ওভারও খেলা হত, তবে ভারতকে তুলতে হত ১৪৮ রান। 

যা নিয়মের গেঁড়াকলে বেশ কঠিন হত টিভ ইন্ডিয়ার কাছে। কারণ, ভিজে আউট ফিল্ড এবং স্যাঁতসেতে পিচে টার্ণ করতে পারত বল। কাজে আসতে পারত নিউজিল্যান্ডের স্পিন অস্ত্র। যার কবলে এত কম ওভারে ওই পরিস্থিতিতে ভারতের চাপ বাড়তে পারত দ্বিগুণ। যদিও রিজার্ভ ডে অর্থাৎ বুধবার ওই ৪৬.১ ওভার থেকেই খেলা শুরু হবে। আর যদি রিজার্ভ ডে’তেও খেলাটি ভেস্তে যায়, তাহলে নেট রানরেটের বিচারে ভারত সরাসরি চলে যাবে ফাইনালে। 

কিন্তু বিশেষজ্ঞরা মনে করছেন, এতটা বিরামের পর ফের খেলা হলে দু’দলই নিজেদের মতো রণকৌশল সাজাবে, যা ওলটপালট করতে পারে সব হিসেব। আবার সবচেয়ে ভালো ফর্মে থাকা ভারতের ক্রিকেটাররাও জেতার অনুকূল পরিবেশ পেতে পারেন, যা ফাইনালের রাস্তা সহজ করবে বলে তাঁদের মত। 

ডার্ক ওয়ার্থ লুইস নিয়মে মঙ্গলবার খেলা হলে, ভারতের খানিকটা অসুবিধা হতেই পারত। এত ভালো খেলার পরেও, নিয়মের জাঁতাকলে সমস্যা হতে পারত জয় পেতে, যা নিয়ে যথেষ্টই চিন্তিত ছিলেন ক্রিকেটভক্তরা। 

কেউ কেউ ফের তোপ দাগছেন, নিয়ামক সংস্থা আইসিসিকে। বৃষ্টিতে উপযুক্ত ব্যবস্থা না নেওয়ার অভিযোগ উঠছে তাদের বিরুদ্ধেও। এখন একটাই প্রার্থনা আপামোর দেশবাসীর, বুধবার যেন নির্বিঘ্নে সম্পন্ন হয় ম্যাচ। আর ভারত যেন ফাইনালে ওঠে এবং জয় পায়।

Comment As:

Comment (0)