No icon

কার্ডিফে সাকিবের প্রথম বিশ্বকাপ সেঞ্চুরি

স্পোর্টস প্রতিনিধি,  কার্ডিফ থেকে ;


বাংলাদেশের সবসময়ের সেরা ক্রিকেটার, অনেক দিন থেকেই বিশ্বসেরাদের একজন। কিন্তু বৈশ্বিক টুর্নামেন্টে বড় ইনিংস ছিল না একটা লম্বা সময় ধরে। খরা ঘুচেছিল কার্ডিফে, ২০১৭ চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফিতে সেঞ্চুরি করে। সেই কার্ডিফেই এবার সাকিব আল হাসান পেলেন প্রথম বিশ্বকাপ সেঞ্চুরির স্বাদ।


ইংল্যান্ডের রেকর্ড রান তাড়ায় বাংলাদেশ খুব বড় চ্যালেঞ্জ জানাতে না পারলেও সাকিব করেছেন দুর্দান্ত এক সেঞ্চুরি। খেলেছেন ১১৯ বলে ১২১ রানের ইনিংস। তিন নম্বরে ব্যাটিংয়ে নেমে এটি বাংলাদেশের সর্বোচ্চ ব্যক্তিগত স্কোরের রেকর্ড।


চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফির সেই ম্যাচে অসাধারণ সেঞ্চুরিতে দলের অবিস্মরণীয় জয়ে বড় ভূমিকা রেখেছিলেন সাকিব। তবে সেবার সঙ্গী পেয়েছিলেন মাহমুদ উল্লাহকে, যার ব্যাট থেকেও এসেছিল সেঞ্চুরি। এবার সাকিবকে সঙ্গ দেওয়ার মতো ছিল না তেমন কেউ।


এবারের আগে তিনটি বিশ্বকাপ খেলেছেন সাকিব। ২১ ম্যাচে সর্বোচ্চ ছিল ৬৩, তার মাপের একজন ক্রিকেটারের পাশে যা বড্ড বেমানান। এবার প্রথম ম্যাচেই দক্ষিণ আফ্রিকার বিপক্ষে সেই স্কোর ছাড়িয়ে খেললেন ৭৫ রানের ইনিংস। পরের ম্যাচে নিউ জিল্যান্ডের বিপক্ষে তার ব্যাট থেকে এলো ৬৪ রান। এবার সেঞ্চুরি।


এই পরিক্রমায় সাকিব উঠে গেছেন এবারের বিশ্বকাপে এখনও পর্যন্ত রান সংগ্রহের শীর্ষে। বাংলাদেশ-ইংল্যান্ড ম্যাচ শেষে ২৬০ রান সাকিবের, ২১৫ রান নিয়ে দুইয়ে জেসন রয়।


তিন নম্বরে উঠে আসার পর থেকেই অসাধারণ ধারাবাহিকতা সাকিবের ব্যাটে। এই ম্যাচের আগে ১৭ ইনিংসে ফিফটি পেরিয়েছিলেন ৮ বার। তবে সেঞ্চুরি ছিল না একটিও। তিন নম্বর ব্যাটসম্যানের কাছে দলের দাবি থাকে বড় ইনিংস। সেই দাবিও মেটালেন এবার।


তিন নম্বরে বাংলাদেশের মাত্র পঞ্চম ওয়ানডে সেঞ্চুরি এটি। দুটি করেছিলেন মোহাম্মদ আশরাফুল, একটি জুনায়েদ সিদ্দিক। আর সাকিবের ইনিংসের আগে তিনে সর্বোচ্চ ইনিংসের রেকর্ড ছিল সৌম্য সরকারের, গত অক্টোবরে জিম্বাবুয়ের বিপক্ষে চট্টগ্রামে ১১৭।


শতক করে ৬ হাজার ওয়ানডে রানের পথেও এগোচ্ছিলেন সাকিব। তবে বেন স্টোকসের ইয়র্কারে তাকে থামতে হয়েছে একটু দূরে। বাংলাদেশের দ্বিতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে ৬ হাজার ছুঁতে তার প্রয়োজন আর ২৩ রান।

Comment As:

Comment (0)